Latest News

নাইট শিবিরে অন্দ্রে ঝড়, জয় ৬ উইকেটে What's New Life মোদির জন্য মহাযজ্ঞ করছেন গুজরাটের নারীরা What's New Life ফের গণভোটের দাবি লন্ডনে, রাস্তায় মানুষ What's New Life মোদী, মমতা  স্বৈরশাসক : রাহুল গান্ধী What's New Life কেনো নীল সাগর হয়ে উঠছে সবুজ! What's New Life এই গরমে খেতে পারেন ঠান্ডা তেঁতুলের শরবত What's New Life জেলায় জেলায় বিজেপির অন্তর্দ্বন্দ্ব What's New Life প্রথম ম্যাচেই হার কোহলি বাহিনীর What's New Life সাপ্তাহিক লগ্নফল What's New Life GELO CHOITRO ASCHHE BOISAKH AT PARANTHE WALI GALLI What's New Life
পাকিস্তানের পর এবার মিয়ানমারে ১০টি জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংস

পাকিস্তানি ভূখণ্ডের পর এবার মিয়ানমার সীমান্তে ঢুকে পৃথক হামলা চালিয়েছে ভারতীয় সেনা বাহিনী। এতে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কমপক্ষে ১০টি জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংস করা হয়েছে বলে দাবি ভারতের। কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্যের বরাতে করা প্রতিবেদনে এই হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে দেশটির সংবাদমাধ্যম নিউজ ১৮। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পাকিস্তানের বালাকোটে বিমান হামলা ইস্যুতে দেশ জুড়ে চলমান উত্তেজনার মধ্যেই এবার মিয়ানমারে এক বড়সড় সামরিক অভিযান চালাল ভারতীয় সেনারা। সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, ‘অপারেশন সানরাইস’ নামে এই অভিযানে ভারতীয় সেনাদের সহায়তার জন্য ছিল মিয়ানমারের সেনা সদস্যরাও। এতে প্রথম অভিযানটি চালানো হয় গত ১৭ ফেব্রুয়ারি এবং দ্বিতীয়টি করা হয় গত ২ মার্চ। প্রায় ১০ দিন যাবত চলা এ অভিযানে এখন পর্যন্ত প্রায় ১০টি জঙ্গি ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়।

এদিকে ভারতীয় সামরিক বাহিনীর এক কর্মকর্তা বলেন, ‘মিয়ানমারের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে আরাকান আর্মিদের তৎপরতা ক্রমশ বাড়ছিল। এটি মায়ানমারের একটি সক্রিয় জঙ্গি সংগঠন। তারা মিজোরাম এবং মায়ানমার সীমান্তের ঘাঁটি থেকেই দীর্ঘদিন যাবত এসব জঙ্গি কার্যকলাপ চালাচ্ছিল। মূলত তাদের নিধনের জন্যই আমরা সে দেশের সেনাদের সঙ্গে নিয়ে এই বিশেষ অভিযানটি চালিয়েছি।’

সামরিক বাহিনীর এ কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘দুই পর্যায়ে সেই অভিযানের প্রথম পর্যায়ের লক্ষ্য ছিল মায়ানমার-মিজোরাম সীমান্তে জঙ্গি ঘাঁটিগুলোকে ধ্বংস করা। আর দ্বিতীয় পর্যায়ের অভিযানের লক্ষ্য ছিল নাগা জঙ্গি গোষ্ঠী এনএসসিএনের (খাপলাং) ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেওয়া।’
অপরদিকে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, ভারতীয় স্পেশাল ফোর্স এবং আসাম রাইফেলসের সঙ্গে মায়ানমার সেনারাও এই অভিযানে অংশ নেয়। এ সময় হেলিকপ্টার এবং ড্রোন ব্যবহারের মাধ্যমে জঙ্গিদের গতিবিধি নজর রাখা হচ্ছিল। মূলত এতে তাদের যাবতীয় তথ্য সংগ্রহের পরপরই এ হামলাটি চালানো হয়। উল্লেখ্য, চীন সংলগ্ন সীমান্ত এলাকায় অবস্থিত মিয়ানমারের কাচিন প্রদেশে গত দু’বছর যাবত আরাকান আর্মি সদস্যদেরকে প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছে কাচিন ইনডিপেনডেন্স আর্মি। এতে প্রায় ৩ হাজার ক্যাডারকে বিভিন্ন ধাপে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। মূলত এর পর তাদের পাঠিয়ে দেওয়া হয় মায়ানমারের দক্ষিণাঞ্চলীয় সীমান্তে। আর সেখান থেকেই তারা এতদিন ভারতে জঙ্গি কার্যকলাপ চালাচ্ছিল।

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Luka Chuppi Total Dhamaal Gully Boy Nagarkirtan Badla Mukherjee Dar Bou Mahalaya WMT 9615 Captain Marvel Thomas & Friends
What's New Life
Inline
Inline