Latest News

SPINACH ARTICHOKE WONTONS What's New Life Men at higher risk of dying of AIDS than women: UNAIDS What's New Life Canada welcomes Rahaf Alqunun What's New Life Ram Rahim convicted of killing journalist What's New Life Drinking diet soda leads to memory loss! What's New Life চ্যালেঞ্জের মুখে মোদির উচ্চবর্ণ কোটা What's New Life ‘বড় ভাই’ শির সম্মতি পেলেন কিম জং উন What's New Life সীমান্তে ২০ লাশ! What's New Life তালেবান হামলায় নিহত ৩২ What's New Life আলোচনায় সেই রাম রহিম What's New Life
সুন্দরবনের গপ্পো (দ্বিতীয় পর্ব)

গোসাবা পৌঁছতে বিকেল হয়ে গেল৷ ক্লান্তিকর জলযাত্রা শেষ করে নৌকা থেকে নেমে বেশ আরাম লাগছে৷ একটু চা-টা খেয়েই আবার রওনা দিলাম পাখিরালার উদ্দেশ্যে৷ গোসাবা দ্বীপের অপর সীমানায় পাখিরালার অবস্থান৷

সূর্যাস্তের আকাশে মেঘের আলপনা, দু’পাশে ধানের ক্ষেত, ছোট ছোট কুঁড়েঘরের জীর্ণদশা, শিশু- কিশোরদের দৌরাত্ম্য দেখতে দেখতে পিচঢালা আঁকাবাঁকা রাস্তা ধরে সাইকেল ভ্যানে চেপে এগিয়ে চলি৷ প্রকৃতিতে বর্ষার প্রকট ছাপ, চারিদিকে সবুজের সমারোহ৷

পথে ভ্যানচালক শঙ্করদার সাথে গল্প জুড়ে দিলাম৷ আধ ঘণ্টার সফরে রোমাঞ্চকর সব কাহিনী ! শুনলাম বর্ষার সময়ে বাঘেরা বাঘিনীর সঙ্গে মিলনের আশায় বেরিয়ে পড়ে৷ সেইসময়ে লোকালয়েও চলে আসে ! খবরের কাগজের শিরোনাম হয় ! পাখিরালাতেও নাকি বাঘবাবাজি মাঝেমধ্যেই হানা দেন !

পাখিরালা পৌঁছে দেখি চারিদিক শুনশান৷ কোথাও কোন জনমনিষ্যি নেই৷ আমরা দু’জন আর ভ্যানচালক শঙ্করদা৷ নদীর তীরে কয়েকটা মাটির ঘর৷ এগুলো নাকি দোকানঘর, মরসুমে খোলা থাকে, এখন পর্যটক না থাকায় বন্ধ৷ তখন মানুষজনের কলরবে মুখরিত হয় পাখিরালার এই নদীকূল৷ সামনেই বিশাল মাতলা নদী, অপর তীরে সজনেখালি দ্বীপ৷ শঙ্করদা জানালেন, একটু হাঁটলেই একটা হোটেল রয়েছে, নাম কৃষ্ণকূঞ্জ৷ জানিয়েই তিনি বিদায় নিলেন৷ ততক্ষণে অন্ধকার নেমে এসেছে৷ দুরুদুরু বুকে এগিয়ে কৃষ্ণকূঞ্জ হোটেলের সামনে উপস্থিত হলাম৷ চারিদিক অন্ধকার, বিদ্যুতের কোন ব্যবস্থাই চালু হয়নি৷ টর্চের আলোয় দেখলাম হোটেলের সব ঘর বন্ধ, তালা ঝুলছে৷ ভয় আর দুশ্চিন্তা ক্রমশ গ্রাস করছে৷ শঙ্করদার থেকে নামটা জেনে নিয়েছিলাম, কেয়ারটেকার মৃণালদা’র নাম ধরে হাঁকডাক শুরু করলাম৷ বেশ কিছুক্ষণ ডাকাডাকির পরেও কোন সাড়া মিললো না৷ বিপদের গন্ধে আমাদের কপালে তখন বিন্দু বিন্দু ঘাম জমতে শুরু করেছে৷ ভ্যানটাকেও ছেড়ে দেওয়াটা বোকামি হয়েছে মনে হচ্ছে৷ গোসাবা ফিরে যাওয়াটাও এখন অসম্ভব৷ পিছানোর পথ বন্ধ, সামনেও কোন উপায় দেখছি না৷ সত্যিই এ যেন ‘জলে কুমির, ডাঙায় বাঘ’ এর মতো অবস্থা ! সার্থক সুন্দরবনের বিশেষণ ! হঠাৎ প্রায় দেবদূতের মতো আবির্ভূত হলেন রোগা রোগা চেহারার এক ভদ্রলোক৷ আমরা যেন প্রাণ ফিরে পেলাম ! কিন্তু কথা বলে নিরাশই হলাম, কারণ ইনি মৃণালদা নন৷ তবে তিনি জানালেন, একটু দূরে আরেকটা হোটেল তৈরির কাজ চলছে, ওখানেই তিনি মৃণালদাকে তিনি দেখেছেন৷ অন্ধকারের মধ্যেই পড়ি মরি করে সেদিকে দৌড়ে গেলাম৷ কথায় আছে না, ‘যেখানেই বাঘের ভয়, সেখানেই সন্ধ্যা হয় ! উফফ্ কারা যে এগুলো লিখেছিলেন ! তাঁরাও কি আমাদের মতো সুন্দরবনে এসে অসহায় অবস্থায় পড়েছিলেন ! কে জানে !

ডাকাডাকির পর অবশেষে মৃণালদার সাক্ষাত মিললো৷ কিন্তু তিনি আমাদের দেখে বাঘ দেখার মতই আশ্চর্য হলেন ! সব শুনেও নির্দয়ভাবে তিনি বললেন এই মুহূর্তে তাঁর হোটেলে আমাদের জায়গা দেওয়া সম্ভব নয় ! কারণ পর্যটক থাকার মতো ন্যূনতম আয়োজনটাও এই মুহূর্তে তাঁর হোটেলে নেই৷ আমরা প্রায় হাতেপায়ে ধরলাম, বললাম, রাতটুক থাকতে দিলেই চলবে৷ আমরা আর কিছু চাই না৷ মৃণালদা বললেন, হোটেলের রেস্তোরাঁ এখন বন্ধ, আমাদের দু’জনের জন্য আলাদা কোন খাবারের ব্যবস্থা তিনি করতে পারবেন না৷ আমরা বললাম, আমাদের জন্য আলাদা কিছু বন্দোবস্তের দরকার নেই, তিনি রাত্রে নিজের জন্য যা যা রান্না করবেন, সেটা খেতেই আমরা প্রস্তুত ! আমাদের অসহায়তা দেখে খানিকটা নিমরাজি হয়েই তিনি আমাদের হোটেলের দিকে নিয়ে চললেন….

(এরপর শেষ পর্বে)

ছবি সৌজন্যে – কৌশিক ব্যানার্জী

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Zero KGF Rosogolla Adventure of jojo Simmba Salt Bridge Bijoya Koler Gaan Goyenda Tatar Bumblebee Mary Poppins Returns The Mule
What's New Life
Inline
Inline