Latest News

বোয়াল মাছের ঝোল What's New Life কি করে বুঝবেন কোনটা ব্যাড ক্যালোরি, গুড ক্যালির What's New Life পরের শুক্রবার মুক্তি ‘দাবাং ৩’র, এদিকে তৈরি ‘দাবাং ৪র স্ক্রিপ্ট What's New Life সিএবিকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে সুপ্রিম কোর্টে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র What's New Life ট্যুইট করে জনসনকে জয়ের অভিনন্দন মোদীর What's New Life সিএবিকে কেন্দ্র করে জরুরী বৈঠকের ডাক মমতার What's New Life সিএবি নিয়ে উত্তাল মেঘালয়, বন্ধ ইন্টারনেট পরিষেবা What's New Life ব্রিটেনের সাধারণ নির্বাচনে জয়লাভ বরিস জনসনের কনজারভেটিভ পার্টির What's New Life নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে স্বাক্ষর রাষ্ট্রপতি রামনাথ কবিন্দের What's New Life ঐতিহাসিক অযোধ্যা মামলার রায়ের ১৮ টি রিভিউ পিটিশন খারিজ করলো সুপ্রিম কোর্ট What's New Life

কর্ণাটকে সপ্তমবার রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হওয়ার সম্ভাবনা

কর্ণাটকে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন জোট সরকার ভেঙে গেছে। গত ২৩ জুলাই বিধানসভায় মুখ্যমন্ত্রী এইচ ডি কুমারাস্বামীর সরকার আস্থা ভোটে হেরে গেলে সরকার ভেঙে দেন স্পিকার। এরপর গভর্নরের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন মুখ্যমন্ত্রী।
বিধানসভায় আস্থা ভোটে কংগ্রেসের জোট সরকারের পক্ষে পড়ে ৯৯টি, অপরদিকে ১০৫টি ভোট পড়ে বিজেপির পক্ষে। জোট সরকারের বিরুদ্ধে আস্থাভোটে জেতার পর কর্ণাটকের গভর্নর বাজুভাই বালার সঙ্গে রাজ্যের বিজেপি প্রধান ও সম্ভাব্য মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরাপ্পা দেখা করেন।

কিন্তু আস্থা ভোটে জয়ের ৪৮ ঘণ্টা পরেও বিজেপির সভাপতি অমিত শাহর সবুজ সংকেত পাননি ইয়েদুরাপ্পা। ফলে এই মুহূর্তে কর্ণাটক রাজ্য সরকারহীন। এ পরিস্থিতিতে কর্ণাটকে সপ্তম বারের মতো রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হতে পারে। কারণ সরকার গঠন না করলে আর কোনো উপায় থাকবে না বিজেপির।
ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কর্ণাটকে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন জোট সরকার ফেলতে বিজেপি যতটা তৎপরতা দেখিয়েছে, গড়তে ততটা সক্রিয়তা দেখাচ্ছে না। উল্টে ধীরে চলো নীতি নিয়েছে তারা।

১৯৭১ সালে প্রথমবার কর্ণাটকে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হয়েছিল। শেষবারের মতো ২০০৭ সালে এখানে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হয়েছিল। ক্ষমতার লোভে দলত্যাগ করেন নেতারা। কর্ণাটকেও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। এবার দলবদল করালেও বিধায়কদের সরকারিভাবে নিজেদের দলভুক্ত করতে পারেনি। এ কাজের অনেকটাই নির্ভর করছে কর্ণাটক বিধানসভার স্পিকার কেআর রমেশকুমারের সিদ্ধান্তের ওপর।
গতকাল বৃহস্পতিবার বেঙ্গালুরুতে ফিরে এসেছেন কর্ণাটকের কংগ্রেস ও জেডিএস বিদ্রোহীরা। স্পিকার তাদের বিধায়ক পদ খারিজ করে দিলে, দলে নিয়ে বিজেপির কোনো লাভ হবে না। এমনকি উপনির্বাচন হলেও বিজেপি এদের প্রার্থী করতে পারবে, কিন্তু জিতলে মন্ত্রী করতে পারবে না। তাই এদের দলে নেয়া তখন বোঝা হয়ে যাবে।
এদিকে স্পিকার রমেশকুমারকে নানাভাবে হেনস্থা করেছেন বিদ্রোহী বিধায়করা। এমনকি তার নামে বার বার সুপ্রিম কোর্টে নালিশ জানিয়েছেন। এ পরিস্থিতিতে রাজনৈতিক মহলের অধিকাংশের মতে, স্পিকার এসব বিরোধীদের বিধায়ক পদ বাতিল করতে পারেন। আর এতে সমস্যায় পড়বেন বিধায়করা। কারণ আগামী ৫ বছরের মধ্যে তারা আর মন্ত্রী হতে পারবেন না।
বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এ অবস্থায় রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করে ৬ মাস পর নতুন করে বিধানসভার ভোট হলে, বিজেপির অনেক বেশি লাভ হবে।

ছবি সংগৃহিত

Comments

KOLKATA WEATHER
Pati Patni Aur Woh Panipat সাগরদ্বীপে যকেরধন সূর্য পৃথিবীর চারিদিকে ঘোরে 3 Knives Out Hotel Mumbai Bohomaan X Ray: The Inner Image Commando 3
What's New Life